আজঃ শুক্রবার ● ২৯শে চৈত্র ১৪৩০ ● ১২ই এপ্রিল ২০২৪ ● ২রা শাওয়াল ১৪৪৫ ● বিকাল ৪:২০
শিরোনাম

By মুক্তি বার্তা

বানারীপাড়ায় দক্ষিণ নাজিরপুরবাসী পৈত্রিক ভিটেমাটি ফিরে পেতে চান

ফাইল ছবি

রাহাদ সুমন, বানারীপাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি॥ বরিশালের বানারীপাড়া পৌর সভার ২ নং ওয়ার্ডের ঐতিহ্যবাহী দক্ষিণ নাজিরপুর গ্রামটি রাক্ষসি সন্ধ্যা নদী গ্রাস করে ফেলেছিলো। ওই গ্রামের সরকারি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মসজিদ, ঈদগাঁহ, রাস্তাঘাট, ব্রিজ কালভার্ট, ফসলি জমি, বসতভিটা সবই নদী গ্রাস করে ফেলে। বসতভিটা ও ফসলি জমিসহ সব কিছু হারিয়ে কয়েকশত পরিবার নিঃস্ব ও রিক্ত হয়ে পড়ে। সম্পত্তি ক্রয় করে বাড়িঘর করার যাদের সঙ্গতি নেই তারা অনেকেই পরিবার পরিজন নিয়ে সদর ইউনিয়নের গুচ্ছ গ্রাম ও পৌরসভার  ১ নং ওয়ার্ড এবং সলিয়াবাপুর ইউনিয়নের খেজুরবাড়ি আবাসনে আবার কেউ কেউ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ও পৌরসভার অন্য ওয়ার্ডেও বসতি গড়েন। সপরিবারে রাজধানীসহ বিভিন্ন শহরেও চলে যান অনেকে। যাযাবর জীবনও বেছে নিয়েছেন কেউ কেউ।

নদীর তীরে ছাপড়া ঘরে থেকে কোন একদিন চর জেগে উঠবে সেখানে আবার ঘরবসতি গড়ে তুলবেন এ আশায় বুক বেধে আছেন অনেকে। ভাঙনের ধারাবাহিকতায় ২৫/৩০ বছর পূর্বে  সম্পূর্ন ভেঙ্গে যাওয়া এ গ্রামটি গত এক যুগ ধরে একটু একটু করে জেগে উঠতে শুরু করে। দু’টি স্কুল ও মসজিদ নতুন করে এর অদূরে অন্যের দানকৃত জমিতে গড়ে তোলা হয়। মানুষও নতুন করে স্বপ্ন দেখতে থাকে  পৈত্রিক ভিটা আবার ফিরে পাওয়ার। দু’একজন বালি ভরাট করে ঘর নির্মাণের প্রস্তুতিও নেয়।  কিন্তু হঠাৎ করে উপজেলা ভূমি অফিস ওই সম্পত্তির খাজনা নেওয়া ও বালি ভরাট বন্ধ করে দেওয়ায় তাদের স্বপ্নে ছেদ পড়ে।  সন্ধ্যা নদীর তীরে জেগে ওঠা বিশাল এ চর খাস সম্পত্তি হয়ে যেতে পারে এ শঙ্কায় পড়েন তারা। অভিযোগ রয়েছে ওই সম্পত্তি খাস করে একটি ভূমিগ্রাসী চক্র ডিসিআর নিয়ে ভোগ দখলের পায়তারা করছেন।

৭ অক্টোবর বুধবার সন্ধ্যায় নদী ভাঙনের শিকার পরিবারগুলো বানারীপাড়া প্রেসক্লাবে এসে তাদের পৈত্রিক ভিটেমাটি রক্ষা ও ফিরে পেতে সাংবাদিকদের সহায়তা কামনা করেন। এ বিষয়ে তারা স্থানীয় সংসদ সদস্য মো. শাহে আলম, উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম ফারুক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ আব্দুল্লাহ সাদীদের কাছে স্মারকলিপি দেবেন বলেও জানান।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক সহকারি কমান্ডার  ও ২ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি  মীর সাইদুর রহমান শাহজাহান, বাইশারী সৈয়দ বজলুল হক বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আলমগীর হোসেন তালুকদার, অধ্যাপক আলহাজ্ব এম এ কাইয়ুম, ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইউনুস মিয়া, ২ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর রফিকুল আলম, ব্যবসায়ী রবীন্দ্রনাথ দেবনাথ, রুহুল আমিন বেপারী, বাচ্চু বেপারী, বাবুল বেপারী, আনোয়ার হোসেন, শেখ নুরুল ইসলাম, পৌর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মাহফুজুল হক মাসুম,মহুরী ইউনুস বেপারী, যুবলীগ নেতা বাচ্চু বেপারী প্রমুখ।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বানারীপাড়া প্রেসক্লাব সভাপতি রাহাদ সুমন, সহ-সভাপতি প্রভাষক মামুন আহমেদ, ইলিয়াস শেখ ও জাহিন মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক সুজন মোল্লা, যুগ্ম সম্পাদক ফয়েজ আহম্মেদ শাওন, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিক শাহিন প্রমুখ।

মুবার্তা/এস/ই

ফেসবুকে লাইক দিন