আজঃ শুক্রবার ● ২০শে অগ্রহায়ণ ১৪২৭ ● ৪ঠা ডিসেম্বর ২০২০ ● ১৮ই রবিউস-সানি ১৪৪২ ● সন্ধ্যা ৬:০৫
শিরোনাম

By মুক্তি বার্তা

হাসপাতালে জরুরী বিভাগে সংকটাপন্ন প্রসূতি চিকিৎসক ক্লিনিকে!

ফাইল ছবি

রাহাদ সুমন, বিশেষ প্রতিনিধিঃ মঙ্গলবার রাত ১১টার পরে বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স গুরুতর অসুস্থ  প্রসূতিকে নিয়ে আসেন স্বজনরা।
জরুরী বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক মীরা মজিদকে না পাওয়ায় চিকিৎসার অভাবে  ওই রোগীর অবস্থা  সংকটাপন্ন  হয়ে পড়ে।  এতে দিশেহারা ও বিক্ষুদ্ধ হয়ে পড়েন রোগীর স্বজনরা। জরুরী বিভাগ থেকে  ৪০ বার ফোন করেও ডাঃ মীরা মজিদের কোন সাড়া পাওয়া যায়নি। পরে তাকে হাসপাতাল সংলগ্ন সেবাসদন ক্লিনিকে আবিস্কার করা হয়। এতে রোগীর স্বজনদের  মাঝে চরম ক্ষোভের সঞ্চার হয়। যা ভিন্ন রূপও নিতে পারতো। এমন সময়
খবর পেয়ে বাসা থেকে ছুটে  আসেন মানবিক ডাঃ গোপাল শীল। তিনি প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ওই প্রসূতিকে কিছুটা সুস্থ করে তুলে পরে  অ্যাম্বুলেন্সে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠান। ।
ডাঃ গোপাল খবর পেয়ে বাসা থেকে হাসপাতালে ছুটে এসে চিকিৎসা না দিলে প্রসূতি ও তার অনাগত সন্তানের অনাকাঙ্খিত দুর্ঘটনা ঘটতে পারতো। এদিকে অভিযোগ রয়েছে ডাঃ মীরা মজিদ হাসপাতালের চেয়ে ক্লিনিকে বেশীরভাগ সময়   ডিউটি করে থাকেন। তার স্বেচ্ছাচারিতা ও কান্ডজ্ঞানহীন আচরনে সবাই অতিষ্ঠ।
তার বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই। অপরদিকে
ডিউটি না থাকার পরেও  এক সংকটাপন্ন প্রসূতিকে পরম যত্নে  চিকিৎসাসেবা দিয়ে মানবতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে ডাঃ গোপাল শীল নন্দিত হলেন বিপরীতে একই হাসপাতালের অপর ডাঃ মীরা মজিদ ডিউটিতে থেকেও সেবা না দিয়ে  হলেন নিন্দিত। অথচ দু’জনই মানবসেবার ব্রতি নিয়ে চিকিৎসক হয়েছেন। সেই ব্রতিকে মেনে একজন তার দায়িত্ব ও কর্তব্যে নিষ্ঠাবান হলেও অপরজন ঠিক তার উল্টো…একজন মানবিক অপরজন অমানবিক। এ প্রসঙ্গে ডাঃ মীরা মজিদের কাছে জানতে চাইলে তিনি নিরুত্তর থাকেন।
মুবার্তা/এস/ই

ফেসবুকে লাইক দিন