আজঃ শনিবার ● ৩০শে চৈত্র ১৪৩০ ● ১৩ই এপ্রিল ২০২৪ ● ২রা শাওয়াল ১৪৪৫ ● রাত ১২:৩১
শিরোনাম

By মুক্তি বার্তা

শত শত মানুষের সামনে সহপাঠীরা পিটিয়ে হত্যা করেছে অনিককে

তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে সদর উপজেলার নাগরিয়াকান্দি এলাকায় ঈদ উপলক্ষে মেঘনা নদীতে নৌ ভ্রমণে গিয়ে অনীককে পিটিয়ে হত্যা করে বন্ধুরা। এ ঘটনায় পুলিশ তিনজনকে আটক করেছে।

ঈদ আনন্দ রূপ নিয়েছে বিষাদে। বাড়িজুড়ে কান্না আর আহাজারি। শোকে বিহ্বল স্বজনরা। সন্তান হারিয়ে পাগলপ্রায় মা-বাবা। শোকের ছায়া নেমে এসেছে গ্রামজুড়ে। এই চিত্র মেঘনা নদীবেষ্টিত চরাঞ্চল নরসিংদীর কালাইগোবিন্দপুর গ্রামে। দশম শ্রেণির ছাত্র ফারহান আহমেদ ওরফে অনীককে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে শত শত মানুষের সামনে সহপাঠীরা পিটিয়ে হত্যা করেছে। এ ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হলে এলাকায় ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, সোমবার সদর উপজেলার নাগরিয়াকান্দি এলাকায় শেখ হাসিনা সেতুতে বেড়াতে যায় কালাইগোবিন্দপুর এলাকার শহিদুল্লাহ মিয়ার ছেলে সাটিরপাড়া কালিকুমার উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ফারহান আহমেদ ওরফে অনীক (১৫)। ওই সময় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দড়ি নবীপুর গ্রামের আজিজুল, শ্রাবণ, আরিফ ও মাইন উদ্দিনের সঙ্গে অনীকের ঝগড়া হয়। পরে আশপাশের লোকজন তাদের নিবৃত করে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়।

এ ঘটনার এক দিন পর মঙ্গলবার আজিজুল, শ্রাবণ, আরিফ, মাইন উদ্দিন, ইয়াসিন, সাগর, বাদশাসহ একটি কিশোর গ্রুপ নৌকাযোগে পিকনিক করতে নাগরিয়াকান্দি এলাকায় শেখ হাসিনা সেতুতে আসে। বিকাল ৪টার দিকে অনীককে ফোন করে সেতুতে আসতে বলে বন্ধু আরিফ এবং ঝগড়া সমস্যার সমাধান করা হবে বলে আশ্বাস দেয়। এমন খবরের ভিত্তিতে অনীক সেখানে যায়। যাওয়ার পরপরই ওতপেতে থাকা আরিফ ও তার বন্ধুরা মিলে অনীককে নৌকার কাঠ দিয়ে পেটাতে থাকে। একপর্যায়ে তার মাথায় সজোরে আঘাত করে তারা। পরে অনীককে পানিতে ডুবিয়ে দেয়া হয়। খবর পেয়ে পুলিশ অনীকের মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ সদর হাসপাতালে পাঠায়। এ ঘটনায় নিহতের বাবা সাতজনের নাম উল্লেখ করে সদর মডেল থানায় হত্যা মামলা করেন। ঘটনার পরপরই পুলিশ তিনজনকে আটক করেছে। গতকাল বাদ আসর জানাজা শেষে অনীকের মরদেহ দাফন করা হয়।

এদিকে আনন্দ ভ্রমণের সময় দুই নৌকার লোকজনের মারামারির একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ইয়াসিন সরকার প্রকাশিত সেই ভিডিওতে দেখা যায়, লাঠি, বাঁশ ও কাঠ নিয়ে মারামারি করছে। ভিডিওতে এক কিশোরের মাথায় সজোরে কাঠ দিয়ে আঘাত করতে দেখা যায়।

নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার দত্ত বলেন, হত্যার ঘটনায়  জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনজনকে আটক করা হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে আটক ব্যক্তিদের নাম প্রকাশ করা যাচ্ছে না।

মুবার্তা/এস/ই

ফেসবুকে লাইক দিন