আজঃ বুধবার ● ১৮ই অগ্রহায়ণ ১৪২৭ ● ২রা ডিসেম্বর ২০২০ ● ১৬ই রবিউস-সানি ১৪৪২ ● রাত ৮:২২
শিরোনাম

Edit By: মুক্তি বার্তা

যশোর ঝাউদিয়া মাদ্রসা থেকে চৌগাছার ১২ বছরের ছেলে নিখোঁজ

ফাইল ছবিঃ আলামিন

আব্দুল আলীম, মুক্তি বার্তাঃ যশোরের চৌগাছা উপজেলার রামকৃষ্ণপুরের আলামিন (১২) নামের মাদ্রাসা ছাত্র যশোরের ঝাউদিয়া মাদ্রাসা থেকে নিখোঁজ হয়েছে। পরিবারের লোকজনসহ মাদ্রাসা কতৃপক্ষ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ নিয়েও খুঁজে পায়নি বলে জানা গেছে। নিখোঁজ আলামিন চৌগাছা উপজেলার রামকৃষ্ণপুরের মালায়েশিয়া প্রবাসী আবু বক্কর সিদ্দিকের ছেলে।

আলামিনের পিতা আবু বকর সিদ্দিক মালায়েশিয়া থেকে ম্যাসেঞ্জারে এই প্রতিবেদকের সাথে কথা বলে নিখোঁজের সংবাদ প্রকাশ করে সহযোগিতা চান। তিনি বলেন তার ছেলে আলামিন লেখাপড়ার সূত্রে যশোরের “মাদিনাতুল উলুম মহিউসসুন্নাহ ঝাউদিয়া মাদ্রাসা”য় থাকে। সেখানে থেকে পড়াশোনা করে ও লজিং বাড়ি খাওয়া-দাওয়া করে। কিন্তু মাদ্রাসা হুজুর শনিবার বেলা ১১ টার দিকে আমার বাড়িতে রিং করে বলেন আলামিন কি বাড়িতে গেছে? লজিং বাড়ি খেতে গিয়ে আর ফিরে আসেনি। শোনার পরে বাড়িসহ বিভিন্ন আত্মীয় বাড়িতে খোঁজ নিয়েও খুঁজে পাওয়া যায়নি আলামিনকে। আলামিনের পিতা আরও বলেন আমার বাড়িতে একটি অজানা নম্বর থেকে রিং দিয়ে বলে দুইটি ছেলে একসিডেন্ট করে চুয়াডাঙা ইমা ক্লিনিকে ভর্তি আছে। কিন্তু খোঁজ খবর নিয়ে হাসপাতালে কাউকে পাওয়া যায়নি। পরে নম্বরটি (০১৭২২৮৬২৮৭৫) বন্ধ পাওয়া যায়। এবং ডিবি সূত্রে জানা যায় নম্বরটি খুলনা লোকেশনে। তবে কেউ আমাদের ছেলে আলামিনের খোঁজ পেলে ০১৭৬৩১৬১৫৫০ নম্বরে খবর দিতে বলেন।

আলামিন (নিখোঁজ), পিতা- আবু বকর, রামকৃষ্ণপুর, চৌগাছা

মাদ্রাসার দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত হুজুর মোঃ শহিদুল্লাহ এই প্রতিবেদককে বলেন গত শনিবার (৭ নভেম্বর)  লজিং বাড়িতে সকালের খানা খেতে গিয়ে মাদ্রাসার দুই ছাত্র আলামিন ও আব্দুর রহিম আর ফিরে আসেনি। প্রথমে ফিরে না আসাতে তারা গ্রামের বাড়িতে ফেরত গেলো কিনা সেই হিসাবে তাদের বাড়িতে মোবাইল করা হয়। কিন্তু অভিভাবকগণ তাদেরকে কোন জায়গায় খুঁজে না পেলে আমরাও মাদাসা থেকে চেষ্টা চালিয়ে যায় খোঁজাখুঁজিতে। কিন্তু এখনও কোন খবর পায় নাই।

এ বিষয়ে মাদ্রাসার পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে বলেন আমরা সদর থানায় অভিযোগ দিতে গেলে থানা কতৃপক্ষ হারানো দুই ছাত্রের অভিভাবকসহ যেতে বলেন। এরপর অভিভাবকগণ উপস্থিত হয়ে তারা নিজেরাই অভিযোগ দেন। ইতিমধ্যে থানা থেকে দুই জন পুলিশ মাদ্রাসা এলাকায় ঘুরেও গেছে।

যশোর সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুজ্জামান মাদ্রাসা ছাত্র হারানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এই বিষয়ে অভিভাবকদের পক্ষ থেকে জিডি করা হয়েছে। তদন্তের জন্য দ্বায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে এখনও তাদের কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।

মুবার্তা/এস/ই

ফেসবুকে লাইক দিন