আজঃ রবিবার ● ২৬শে বৈশাখ ১৪২৮ ● ৯ই মে ২০২১ ● ২৬শে রমযান ১৪৪২ ● সকাল ৬:৪৪
শিরোনাম

By: মুক্তি বার্তা

বানারীপাড়ায় পাউবো’র সাবেক কর্মকর্তা বজলুর বিরুদ্ধে সরকারি সম্পত্তি দখল করে ৫টি দোকানঘর নির্মাণের

ফাইল ছবি

রাহাদ সুমন,বিশেষ প্রতিনিধি॥
বরিশালের বানারীপাড়ার সৈয়দকাঠি ইউনিয়নের আউয়ারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও কথিত আওয়ামী লীগ নেতা বজলুর রহমানের বিরুদ্ধে প্রায় কোটি টাকা মূল্যের সরকারি খাস সম্পত্তি অবৈধভাবে দখল করে ৫টি দোকান ঘর নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে সরকারি রাস্তার একাংশ দখল করে বিশাল পাকা মার্কেট নির্মাণেরও অভিযোগ রয়েছে। এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাকে এক শীর্ষ জনপ্রতিনিধির স্থানীয় প্রতিনিধির দায়িত্ব থেকেও সরিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।
এ ব্যপারে সম্প্রতি সৈয়দকাঠি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সহিদুল ইসলাম মৃধা স্থানীয় সংসদ সদস্য,বরিশাল জেলা প্রশাসক,উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) সহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন। তিনি বেহাত হয়ে যাওয়া প্রায় কোটি টাকা মূল্যের সরকারি সম্পত্তি অবৈধ দখলমুক্ত করার জন্যও লিখিত ওই অভিযোগে দাবি জানান।
ওই অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে সৈয়দকাঠি ইউনিয়ন ভূমি অফিস লাগোয়া  ১৭ নং আউয়ার মৌজার সরকারি ১ নং খতিয়ানের ৪৪৬ নং দাগের ২০ শতাংস খাস সম্পত্তি ওই এলাকার কথিত আওয়ামী লীগ নেতা ও পাউবো’র অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বজলুর রহমান অবৈধভাবে দখল করে ৫টি পাঁকা টিনসেড দোকান ঘর নির্মাণ করে ভাড়া দিয়েছেন। এমনকি ওই সম্পত্তির ওপর জনগনের ব্যবহৃত সরকারি টিউবওয়েলও উচ্ছেদ করা হয়। বেদখল হওয়া ওই খাস সম্পত্তির মূল্য প্রায় কোটি টাকা। ইউনিয়ন ভূমি অফিস লাগোয়া খাস এ সম্পত্তি অবৈধভাবে দখল করে দোকান ঘর নির্মাণ করা হলেও রহস্যজনকভাবে তারা এ বিষয়ে নির্লিপ্ত রয়েছেন। এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাবেক সিবিএ নেতা  বজলুর রহমান দাবি করেন বরিশাল জেলা প্রশাসকের দপ্তরে ওই খাস সম্পত্তির ইজারা পাওয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে এবং ইতোমধ্যে জেলা প্রশাসক স্বাক্ষর করেছেন । এ প্রসঙ্গে বানারীপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রিপন কুমার সাহা বলেন তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এদিকে এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে ২৮ এপ্রিল বুধবার কথিত আওয়ামী লীগ নেতা বজলুর রহমানকে এক শীর্ষ জনপ্রতিনিধির স্থানীয় প্রতিনিধির দায়িত্ব থেকে সরিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অপর অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুলতান হোসেন খন্দকারকে তার স্থলাভিসিক্ত করা হয়েছে বলে জানা গেছে। এর ফলে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীসহ সাধারণ জনগণের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

মুবার্তা/এস/ই

ফেসবুকে লাইক দিন